+

লকডাউনে বাউফলে মানবেতর দিন  কাটাচ্ছে কয়েকটি  বেদে পরিবার

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১ দিন ১১ ঘন্টা ৩২ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 2255
...

লকডাউনে বাউফলে মানবেতর দিন  কাটাচ্ছে কয়েকটি  বেদে পরিবার

মোঃ দুলাল হোসাইন( বাউফল): 
পটুয়াখালীর বাউফলে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে বেদে নামক একদল জাযাবর নৃগোষ্ঠী। তাদের অবস্থান বাউফল উপজেলার ১১ নং দাশপাড়া ইউনিয়ন অর্ন্তগত ফায়ার সার্ভিস অফিসের পূর্ব পাশে।
সরেজমিনে কথা বলে জানা যায়,কেউ আসেওনা দেখেও না আমরা কত কষ্টে আছি। খাবারের  জন্য বাচ্চারা কাঁদছে কোনো টাকা পয়সা নেই যে   খাবার এনে দেব। করোনা লকডাউন এমন অবস্থা করেছে যে আমরা কোথাও যেতে পারিনা। কামাই করতে কারও বাড়ি গেলেই  তাড়িয়ে দেয়। আমরা ছয়টি পরিবার বাচ্চাদের নিয়ে খুব কষ্টে   জীবন যাপন করছি- কান্না বিজরিত কন্ঠে এমনটাই জানায় বেদে পরিবারের মেয়ে মৌসুমী  (২২)।

জানা গেছে, তারা দীর্ঘ ৩ মাস ধরে অবস্থান করছে বাউফল ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন সংলগ্ন মেইন সড়কের উত্তর পাশে যুবক এনজিওর নির্ধারিত জমিতে। ছোট ছোট ঘর বানিয়ে তাবু দিয়ে পরিবার নিয়ে থাকছে তারা।  দেখা গেছে, ওই তাবুর   বাহিরে ছোট বাচ্চারা ক্ষুধার যন্ত্রণায় ছটফট করছে।পরিবারের কেউবা ওদের খাবারের মিথ‍্যা আশ্বাস দিয়ে শান্তনা দিচ্ছে। 

এদিকে বেদেনী রহিমা বেগম (৩৫) বলে, আজ ৩মাস হয় এখানে এসেছি ২০টি পরিবার। লকডাউনের আগেই ১৪টি পরিবার অন্যত্র চলে গেছে। আমরা যাইনি কিছু আয়রোজগার করে যাবো তাই। কিন্তু করোনা লকডাউনে পড়ে কোনও কাম কামাই নাই। এখন না খেয়েই থাকতে হয় প্রায় দিন।  আমরা মহিলারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে শিংগা টানিও বিভিন্ন কৌশলে চাল,টাকা- পয়সা আনি আর পুরুষেরা বাজারে বাজারে গিয়ে তাবিজ তুমার ও সাপ খেলা দেখিয়ে টাকা রোজগার করে। লকডাউনের আগে প্রতিদিন ২০০/৩০০ টাকার মতো ইনকাম হতো। মোটামুটি খাওন-পড়ন যাইতো এখন কাজ কাম না থাকায় দিশেহারা অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাই।

কোথা থেকে বাউফলে আসা এমন প্রশ্নের জবাবে বেদে অরুন সর্পরাজ (৪৩) জানায়,  আমরা গোয়ালনিমান্দা, লৌহজং, মুন্সীগঞ্জ থেকে আসছি। কাজ নাই। হাতে টাকা-পয়সা থাকলে চলে যেতাম। এসে এখন বিপদে পড়েছি। ব্যবসা বানিজ্য এখন আর ভালো নাই। 

...
Md. Dulal Hossen(SJB:E418)
Mobile : 01725965494

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com , hr@sorejominbarta.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ