+

কেউ এখন শখ করে কৃষ্ণচূড়া গাছ লাগায় না তেমন

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ৮ দিন ১০ ঘন্টা ৮ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 480
...

মোঃ দুলাল হোসাইন (বাউফল):
মহান সৃষ্টি কর্তার বাহারি সৃষ্টির মধ্যে  ফুল এক অনাবধ‍্য সৃষ্টি। এমন কোন মানুষ নেই যে ফুল পছন্দ করে না।
ফুল না হলে হয় না পূজা হয় না শ্রদ্ধাঞ্জলি।   ফুল কাউকে বানিয়েছে কবি, কাউকে গায়ক আবার কাউকে নায়ক। 
এলো চুলে খোপায় বাঁধা ফুল যেন রমনীর অন‍্যান‍্য সৌন্দর্য। বিমোহিত হয়ে কেউবা বিরহের সুর তোলে.....
অজানা কোন নদীর স্রোতে আমি হারাইয়াছি সাথী রে......মালা কার লাগিয়া গাঁথি...আসলে এই মালা হয়  মূলত ফুলে।
কেউবা ভাই হারানোর বেদনায় সুর তোলে আমায় গেঁথে দে না মাগো একটি পলাশ ফুলের মালা......
আমি জনম জনম রাখবো ধরে ভাই হারানোর জ্বালা.......

ফুলের সাথে দেব না তোমার তুলনা......
এ ধরনের গানের উপমা শুধুই ফুল।
এই সেই কৃষ্ণচুড়া যার তলে দাঁড়িয়ে হাতে হাত রেখে,
অনেক ইতিহাস ঐতিহ্য সৃষ্টি হয়েছে,প্রেমিকে প্রেম,কবির কবিতা, গায়কের কন্ঠ গান, কিন্তু কালের বিবর্তনে আজ সেই    কৃষ্ণচুড়া দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে।কৃষ্ণচুড়া ফুলের  সৌন্দয্য অগ্নিঝরা,পথিকের দৃষ্টি আকর্ষণ করে দূর দূরান্ত থেকে। বৈশাখী হাওয়ায় দুলতে থাকা লাল রঙের এই বরণ সৌন্দর্যে মাতোয়ারা করে রাখে প্রকৃতির চারপাশ। বিভিন্ন  শহরের জেলা স্কুল,কাচারী বাজার, লাল কুটি,মেডিকেল মোড়,চিড়িয়াখানা,লালবাগ সহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের এলাকায়,বেশ ক'টি এই  কৃষ্ণচুড়া গাছ  চোখে পরে। দেখে যে কোনো পথিকের  আবেগী  মন ভরে উঠবে। সময়ের বিবর্তনে গাছ গুলো এখন বয়সের ভারে অনেকটা নষ্ট হওয়ার পথে। সরেজমিনে দেখা যায়, শাহেদা গফুর ইব্রাহিম জেনারেল হাসপাতালের ভিতরে কিছু চারা গাছ রোপন করা হয়েছে। এবং সাহেদা গফুর ইব্রাহিম জেনারেল হাসপাতালের স্বত্বাধিকারী এ এস এম ফিরোজ আলম এর নিজ বাসভবনের পূর্ব ও পশ্চিম পাশে দুটি দৃষ্টি নন্দন কৃষ্ণচূড়া গাছ রয়েছে। এছাড়াও কালাইয়ার বগি এলাকায় এবং বাউফল টি এ‍‍ন্ড টি অফিসের সামনে কৃষ্ণচূড়া গাছ রয়েছে।
এখন আর কেহ এই কৃষ্ণচূড়া চারা রোপন করেনা। ফলে এই বৃক্ষটি আগামী কয়েক বছরের মধ্যে বিলুপ্তির পথে চলে যাবে।
আগামী প্রজন্ম হয়তো বলতেই পারবেনা এই ফুলের নাম বা কথা।এখন যে শহরের রাস্তার দুই পাশেই প্রচুর কৃষ্ণচুড়া বৃক্ষ নিজ সৌন্দর্যে দাঁড়িয়ে আছে । আগামীতে তা কেবলই স্মৃতি হয়ে থাকবে।
কৃষ্ণচুড়া বৃক্ষটি এখন  চোখে পড়লেও আগের সে সংখ্যায় খুবিই কম।জানাগেছে,বন বিভাগের  এই বৃক্ষটির চারা তৈরী ও রোপনের কোনো উদ্যোগ নেই।
এখন সাধারন মানুষ কেউ কৃষ্ণচূড়া  বৃক্ষ কিনে নিয়ে লাগাতে চায়না, কৃষ্ণচূড়া ফুল দেখতে খুবই সৌন্দর্য  এক নন্দিত নকঁশী করা, খরতাপে চলতি পথে পথিকের নজর কাড়বেই। গ্রীষ্মের প্রকৃতিতে প্রাণের সজীবতা নিয়ে যেসব ফুল ফোটে তার মধ্যে কৃষ্ণচূড়া  উল্লেখযোগ্য। গ্রীষ্ম রাঙানো এ ফুল দেখতে যেমন আকর্ষণীয় তেমনি তার রয়েছে নামের বাহার-কৃষ্ণচুড়া ফুল যখন চৈত্র-বৈশাখে ডাল পল্লবিত করে ফুটে তখন মনে হয় বৃক্ষটি ডাল ভেঙ্গে পড়বে। নুয়ে পড়া ফুলেল এই লাল শাখাগুলো যেন পথিক কে ডাকে তার মনুষ্য মননে এক অনন্য জাগরনে ভরে তোলে।

...
Md. Dulal Hossen(SJB:E418)
Mobile : 01725965494

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন
01868974512

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com , thana.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ