+

অর্জন ধরে রাখতে হবে ॥ বিশ্ব মর্যাদায় উন্নীত দেশ

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ০ দিন ১ ঘন্টা ১৬ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 365
...

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ দেশের অগ্রযাত্রা যাতে ব্যাহত না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আন্তর্জাতিক মানদন্ড বজায় রেখে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। উন্নত সমৃদ্ধ হিসেবে এ দেশ গড়ে উঠবে। বাংলাদেশকে বিশ্ব মর্যাদায় আজকে নিয়ে এসেছি। এ মর্যাদা ধরে রাখতে হবে। সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে রবিবার সকালে স্বাধীনতা যুদ্ধে খেতাবপ্রাপ্ত নির্বাচিত মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের উত্তরাধিকারকে দেয়া সংবর্ধনা এবং ২০২০-২০২১ সালের সর্বোচ্চ শান্তিকালীন পদকপ্রাপ্ত সদস্যদের পদকে ভূষিতকরণ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। খবর বাসস’র।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ঢাকা সেনানিবাসের সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের আর্মি মাল্টি পারপাস কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত মূল অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশের পর্যায়ে নিয়ে এসেছিলেন এবং তাঁর সরকার সকলের সহযোগিতা এবং আন্তরিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশকে আজ তাঁরই পদাঙ্ক অনুসরণ করে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত করেছে। এমনকি করোনাভাইরাস মোকাবেলাতেও বাংলাদেশ যথেষ্ট দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে। সেক্ষেত্রে তার প্রশাসন, সশস্ত্র বাহিনী, পুলিশ, আনসার ও ভিডিপি, বিজিবিসহ সাধারণ মানুষ ও দলীয় নেতা-কর্মীরা আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছে এবং মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। এ কারণে, শুধু করোনাভাইরাস নয়, আমরা যে কোন দুর্যোগ-দুর্বিপাক মোকাবেলার সক্ষমতা অর্জন করেছি।

সরকার সশস্ত্র বাহিনীসহ প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণের নানাবিধ কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে আমরা এটুকু দাবি করতে পারি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সকলের সঙ্গে সমান পা মিলিয়ে চলতে পারে। সে সক্ষমতা বাংলাদেশ অর্জন করেছে।

লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমাদের অর্জন ধরে রেখেই এগিয়ে যেতে হবে, এমন অভিমত ব্যক্ত করে তিনি বলেন, আজকের দিনে আমাদের মনে রাখতে হবে এই দেশ আমরা স্বাধীন করেছি লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে। জাতির পিতা বারবার কারাবরণ করেছেন, এই দেশের মেহেনতি মানুষের জন্যই তিনি নিজের জীবন উৎসর্গ করে গেছেন। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টাই আমাদের স্বাধীনতা, কাজেই যা কখনও ব্যর্থ হতে পারে না।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে এবং উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ ইনশাল্লাহ আমরা গড়ে তুলব। এই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করছি।

আমাদের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে আজকের এই দিনটি এক বিশেষ গৌরবময় স্থান দখল করে আছে। যুদ্ধের বিজয়কে ত্বরান্বিত করতে ১৯৭১ সালের এই দিনে সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর অকুতোভয় সদস্যরা যৌথভাবে দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সমন্বিত আক্রমণের সূচনা করে। ডিসেম্বরের শুরুতে সম্মিলিত বাহিনীর সঙ্গে মিত্র বাহিনীর ঐক্যবদ্ধ আক্রমণে পর্যুদস্ত পাকিস্তানী দখলদার বাহিনী ১৬ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়। কিন্তু, দুর্ভাগ্য ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে নির্মমভাবে হত্যার পর মুক্তিযুদ্ধের এই গৌরবময় ইতিহাসকে বিকৃত করার ষড়যন্ত্র করা হয়।

তিনি বলেন, সেসময় মুক্তিযোদ্ধারা পরিচয় দিতে ভয় পেত এমন একটা পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হয়েছিল। অথচ, নিজেদের বিজয় গাঁথার ইতিহাসকে বিকৃত করার এমন নজির পৃথিবীর আর কোন দেশে নেই।

পরিবারের বেঁচে যাওয়া সদস্য তিনি এবং তার ছোট বোন শেখ রেহানাকে দেশে ফিরতে না দেয়ায় ভিন্ন নাম পরিচয়ে বিদেশে রিফিউজি হিসেবে জীবনযাপন করতে হয়েছে। এরপর ’৮১ সালে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর একরকম জোর করেই দেশে ফেরেন এবং ’৯৬ সালে ২১ বছর পর সরকার গঠনে সমর্থ হন। আর এরপরই মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাসকে নতুন প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরার প্রয়াস পান। জাতির পিতার ৭ মার্চের ঐতিহাসিক যে ভাষণকে একদা নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। সেই ভাষণও পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ উজ্জীবনী ভাষণ হিসেবে ইউনেস্কোর আন্তর্জাতিক রেজিস্টারের প্রামাণ্য দলিলে ঠাঁই করে নেয়। দলমত নির্বিশেষে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রকৃত সম্মান প্রাপ্তি নিশ্চিত করা হয়, বলেন তিনি।

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ইউনেস্কো আজকে জাতির পিতার নামে আন্তর্জাতিক পুরস্কারও প্রবর্তন করেছে অথচ এই নামকে মুছে ফেলার কত চেষ্টাই না ’৭৫ পরবর্তী শাসকগোষ্ঠী করেছে। কিন্তু ইতিহাসকে যে মোছা যায় না এটাই তার প্রমাণ।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পরই ১৯৭৪ সালে জাতির পিতা প্রণীত প্রতিরক্ষা নীতিমালার অনুসরণে ফোর্সেস গোল-২০৩০ প্রবর্তন করে সশস্র বাহিনীর আধুনিকায়নে পদক্ষেপ গ্রহণ শুরু করে। শুধু তাই নয় সশস্র বাহিনীর পাশাপাশি পুলিশ, আনসার, বিজিবিসহ সকল বাহিনীর আধুনিকায়নে নানা পদক্ষেপ বাস্তবায়ন শুরু করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার একটাই লক্ষ্য আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের প্রতীক যারা তারা যদি শিক্ষা-দীক্ষায়, প্রশিক্ষণে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন না হয় তাহলে বাংলাদেশের মর্যাদাও কখনও উন্নত হবে না। পাশাপাশি বাংলাদেশের জনগণ যাদের জন্য জাতির পিতা সারাজীবন ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাদের আর্থসামাজিক উন্নয়নের জন্যই তার সরকার ব্যাপক কর্মসূচী বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, আমাদের এই কর্মসূচী কেবল শহর কেন্দ্রিক নয়, তৃণমূলের মানুষ যেন এর সুফল পায় সে পদক্ষেপই আমরা নিয়েছি।

জাতির পিতার দূরদর্শিতার অনুসরণে তার সরকার দেশকে আজ এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এমন অভিমত ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ’৭৫-এ জাতির পিতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের মাধ্যমে অর্জিত গৌরবকে হারিয়ে ফেলেছিল। আজকে আবার সেই গৌরব তারা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের পরিবারের সদস্য এবং সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিটি সদস্যকেও এ সময় অভিনন্দন জানান।

সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল শেখ আবদুল হান্নান, সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব) আজিজ আহমেদ এবং সশস্ত্র বাহিনীর প্রাক্তন আরও পাঁচ কর্মকর্তাকে ২০২০-২০২১ সালের শান্তিকালীন পদকে ভূষিত করা হয়।

এ সময় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হক অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তাদের হাতে সম্মানি চেক এবং উপহার তুলে দেন।

দিবসটি উপলক্ষে শেখ হাসিনা বীরশ্রেষ্ঠদের উত্তরাধিকারী এবং সশস্ত্র বাহিনীর খেতাবপ্রাপ্ত এবং খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের পরিবারের মধ্যে উপহার প্রদান করেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব) তারেক আহমেদ সিদ্দিক, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, নৌবাহিনী প্রধান এ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল শেখ আবদুল হান্নান উপস্থিত ছিলেন।

সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান স্বাগত বক্তৃতা করেন।

সাত জন বীরশ্রেষ্ঠের নিকট আত্মীয়সহ প্রায় ৭৫ জন খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের উত্তরাধিকারীগণ সংবর্ধনায় যোগ দেন।

...
News Admin

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি


খুলনা বিভাগের সাংবাদিক, মুক্ত হাতে যারা লিখতে ভালোবাসেন তাদের জন্য সুখবর। বাংলাদেশের বহুল প্রচারিত, মিডিয়া অন্তুর্ভুক্ত জাতীয় দৈনিক সরেজমিনবার্তা পত্রিকায় খুলনা বিভাগীয় প্রধান , জেলা প্রতিনিধি , বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি পদে নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীগণ ০১৭১৫ ৯৫ ৯৩ ৪৪ এই নম্বর এ যোগাযোগ করুন।

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ