গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত অনলাইন নিবন্ধন নাম্বার ৬৮

লামা ভূমি বিরোধকে কেন্দ্র করে এলাকায় শান্তি ভঙ্গের উপক্রম:

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১ দিন ২১ ঘন্টা ১১ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 220
...

বান্দরবানের লামা উপজেলায় রবিবার(২৭ নভেম্বর) সকালে সরই পুলংপাড়ায় একই ভূমি দু'পক্ষ দাবি করে সংঘাতে মুখোমুখি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষনিক পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে আনেন। সংশ্লিষ্ট উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষদ্বারা বিরোধী ভূমি পরিমাপ পরিচিহ্নিত করে দ্রুত সমাধান করার দাবি করেন স্থানীয়রা। লামা উপজেলা সরই ইউনিয়নে একই ভূমি দু'পক্ষের দাবি। আইনিভাবে দ্রুত সমাধান হওয়া প্রয়োজন। বিরোধটি যত দীর্ঘায়িত হচ্ছে ততই সংঘাত সহিংসতার আশঙ্কা রয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, সরই ইউনিয়নের ৩০১ নং সরই মৌজার পুলংপাড়ায় ১১ একর ৩য় ও ২য় শ্রেণির জমিতে একটি জলাশয়, পাহাড়ের ঢালুতে বিভিন্ন প্রজাতি গাছগাছালী রয়েছে। জায়গাটি দু'পক্ষ দাবি করে, দখল বেদখল, গাছ চুরি, মাছ চুরি, মাছের গোদাবাঁধ কেটে দেয়া, ঘর ভাঙ্গা, পুড়িয়ে দেয়া ইত্যাদি অপরাধে দু'পক্ষ পরস্পর বিরুদ্ধে থানা আদালতে একাধিক মামলা, পাল্টা মামলা করে চলছে। পক্ষদ্বয় হচ্ছে, সরই ইউনিয়নের হাসনাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আঃ জব্বার এর ছেলে আরফাতুল ইসলাম গং। অপর পক্ষ মোঃ নূরুল হক। আরাফাতুল গং এর সাড়ে নয় একর ভূমির কাগজ রয়েছে। অপর পক্ষ নুরুল হক এর রয়েছে ১১ একর ভূমির কাগজ রয়েছে। এ ব্যপারে অনুসন্ধানকালে স্থানীয়রা জানান, উক্ত জমিতে নুরুল হক সরকারি অর্থায়নে একটি মৎস্য বাঁধ নির্মান করেন। একই সময় কিছু গাছগাছালী সৃজন করেছিল। ২০০৯ সালে নরুল হক একটি রাজনৈতিক মামলায় গ্রেফতার হলে, আবদুল জব্বার তার ছেলেরা ওই সুযোগে মাছের গোদাবাঁধসহ জমিটি দখল করে নেয়। পরে তারা একটি কাগজ কিনে জবর দখল করা জমিটি নিজেদের করে দখলে যায়। স্থানীয়রা জানান, দু'পক্ষের জমির কাগজ পর্যালোচনা করে জমিগুলো চিহ্নিত করার সহজ উপায় রয়েছে। কিন্ত পরিমাপ না করে তারা পরস্পর জবর দখল বেদখলে ব্যস্ত রয়েছে। জানাযায়,বিগত ২০০৯ সাল থেকে দু'পক্ষের বিরোধটি তীব্র হতে থাকে। বর্তমানে এই বিরোধকে কেন্দ্র করে সেখানে সংঘাত সহিংসতার মতন মারাত্মক পরিস্থিতি ধারন করতে পারে। আইন শৃঙ্খলার চরম অবনতি হয়ে ভূমি বিরোধকে কেন্দ্র করে প্রাণহানীর আশংকা করছেন স্থানীয়রা। বিষয়টি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা নজরে আনার দাবি জানিয়েছে সরই ইউনিয়নবাসী। এ ব্যপারে জানতে চাইলে, লামা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শহিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, রবিবার সকালে বিরোধীয় ভূমিতে একটি গ্রপ জোর প্রয়োগ করে। আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ তাদেরকে বাধা দেয়। ভূমি দাবিদার এক পক্ষ নুরুল হক জানান, দীর্ঘ বছর ধরে তিনি আরাফাত গংদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে, বর্তমানে তিনি ওই ভূমি নওশাদ মিয়া নামের একজনের নিকট বিক্রি করে দেয়। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, ক্রেতা নওশাদ মিয়া তার ক্রয়কৃত ভূমি ও বন বাগান পরিচর্চা করতে সেখানে গেলে, অপর পক্ষ সংঘাতের আশঙ্কা করে। পরে পুলিশ গিয়ে লোকজন সরিয়ে দেয়। স্থানীয়রা জানান, ব্যপারটি দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনিভাবে সমাধান করা দরকার। সূত্র জানায়, আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ তৎপর রয়েছে। সর্বশেষ পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে আছে বলে জানান, সেখানকার বাসিন্দারা। ওসি জানিয়েছেন, বিষয়টি সংশ্লিষ্ট উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে গুরুতসহকারে জানানো হয়েছে। আইন শৃ্ঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন। নওশাদ মিয়ার পক্ষে একজন জানান, তিনি নুরুল হক নামের একজন থেকে ১ম, ২য় ও তয় শ্রেণির ১১ একর জমি ক্রয় করেছেন। সেখানে একটি মৎস্য গোদাবাঁধ ও বন বাগান রয়েছে। রবিবার সকালে তার ক্রয়কৃত ভূমি থেকে আরাফাত গংরা জোরপূর্বক কাঠ কর্তন পরিবহনে বাঁধা দিতে যায়। এদিকে পুলিশ এসে তার লোকজনকে তাড়া করে। তারা জানান, বিষয়টি উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ নজরে এনে বিরোধীয় ভূমির সীমানা নির্ধারণ করে দিলেতো কোনো বিরোধ থাকে না। সীমানা নির্ধারণ না করে আরাফাত গং বাগান কেটে নিয়ে যাচ্ছে।, এতে দাবিদার অপর পক্ষতো বসে থাকতে পারে না।

...
Muhammad Masudul Haque
01918161881

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ