+

পানির রাজা ছিলেন খাগড়াছড়ির প্রকৌশলী সোহরাব (২য় পর্ব)

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১ দিন ১২ ঘন্টা ৭ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 645
...

মোঃ সাইফুল ইসলামঃ  পরের আমলে তিনি সত্যি সত্যিই খাগড়াছড়িতে অন্য এক হীরক রাজা হয়ে উঠেন। গুপছি বিজ্ঞাপনে সিদ্ধহস্ত সাংবাদিকদের সাথে নিয়ে তিনি আওয়ামীলীগের নেতাদের কাজ দিয়ে ‘ম্যানেজ কর্মসূচি’র জন্য সুপরিচিত এবং কারো কারো কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেন। এই সুযোগে পার্বত্য জেলা পরিষদের তৎকালীন চেয়ারম্যানকে ব্যবহার করে উপ-সহকারি প্রকৌশলী থেকে নির্বাহী প্রকৌশলী বনে যান।  বিভাগীয় চাপাচাপিতে পড়ে বান্দরবানে বদলি হন জ্যেষ্ঠতার দুই ধাপ লংঘন করে নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবেই। সেখানেও ক্ষমতাবানদের বাগে আনার অসীম গুণে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে আবারও খাগড়াছড়ি জেলাকে দখলে নিয়ে নেন। সেই উত্থানকাল থেকে এখনো তিনিই খাগড়াছড়ির জনস্বাস্থ্য বিভাগের একচ্ছত্র অধিপতি। ১০ বছর ধরে একজন উপ-সহকারি প্রকৌশলী হয়েও কিভাবে নির্বাহী প্রকৌশলী পদ-মর্যাদায় একটি জেলার অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছে তা যেন সবারই চোখ এড়িয়ে গেছে!

কথিত নির্বাহী প্রকৌশলী থাকাকালে তিনি দুই জেলার বাসাবাড়ি-যানবাহন থেকে শুরু করে সবকিছু ব্যবহার করেছেন লাট সাহেবের মতোই।

কথায় আছে না, ধরাকে সরা জ্ঞান করলে তার খেসারতও দিতে হয় সেভাবেই। মন্ত্রণালয়ের বদলি আদেশকেও তিনি পাত্তা দিলেন না। গাদ্দারির ফলাফল হিসেবে মঙ্গলবার মন্ত্রণালয়ের জরুরী আদেশে তিনি বরখাস্ত হলেন।

জনস্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের  ২১মে  সহকারী প্রকৌশলী মো.কামাল হোসেনকে পদোন্নতিজনিত কারণে বান্দরবান জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবে পদায়ন দিয়ে বদলি করা হয় এবং বান্দরবান জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সকল দায়িত্ব  নির্বাহী প্রকৌশলী কামাল হোসেনকে হস্তান্তর করার অনুরোধ জানান। কিন্ত বান্দরবান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নতুন পদায়নকৃত কামাল হোসেনের যোগদানপত্র গ্রহণ না করায় তিনি বান্দরবানের যোগ দিতে পারেন নি। পরবর্তীতে ১১ জুলাই স্থানীয় সরকার বিভাগের যুগ্ম সচিব মো.খাইরুল ইসলাম মো.কামাল হোসেনকে বান্দরবানের পরিবর্তে খাগড়াছড়ি জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবে পদায়ন করে প্রজ্ঞাপন জারি করে। একই সাথে নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবে সোহরাব হোসেনকে বান্দরবানে বহাল রাখা হয়।

কিন্তু তাতেও মন ভরেনি সোহরাব হোসেনের। এ অবস্থায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো.সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত আরেকটি চিঠিতে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দায়িত্ব হস্তান্তর না করলে ২৮ জুলাই  অপরাহ্নের পর খাগড়াছড়ির নির্বাহী প্রকৌশলী (অ.দা) সোহরাব হোসেন অব্যাহতি প্রাপ্ত অর্থাৎ স্ট্যান্ড রিলিজ হিসেবে গন্য হবে। দুই জেলায় পানির রাজা এবার একটু নড়েচড়ে বসেন। তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন তাঁর দীর্ঘদিনের রাজত্বে পোস্টিং পাওয়া নির্বাহী প্রকৌশলী কামাল হোসেনের ওপর। তাঁকে কর্মস্থলে যোগ দিতে নানাভাবে বাধা সৃষ্টি করে ব্যর্থ হয় তিনি বেছে নেন তাঁর সেই পুরানা পথ। বুধবার তাঁরই সুপরিকল্পনায় যোগদানের প্রথম দিনেই সোহরাবের ভাড়াটিয়া দুর্বৃত্তদের হাতে লাঞ্চিত হয়ে অফিস ত্যাগ করেন নির্বাহী প্রকৌশলী কামাল হোসেন। কিন্তু অসহায় এই কর্মকর্তার পাশে দাঁড়ান সোহরাবেরই ঘনিষ্ঠ বিএনপি-জামাতের ঠিকাদাররা। তাঁরাও আঁচ করতে পেরেছেন এতোদিনের পানির রাজা মনে হয় বানের তোড়ে ভেসে যাবেন।

এবার যেনো হাটে হাড়ি ভাঙলো। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি প্রকল্পে ভযাবহ অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।  

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পার্বত্য জেলা পরিষদ আইনের দোহাই দিয়েই উপ-সহকারি প্রকৌশলী হয়েও তিনি ২০০৯ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত নির্বাহী প্রকৌশলী’র দায়িত্ব পালন করেন। এই দুর্বলতার বশে ক্ষমতাসীন দলের কিছু নেতাকে তিনি পুকুরচুরির সুযোগ করে দেন।

মূলত সোহরাব হোসেন কারসাজির মাধ্যমেই উপসহকারী প্রকৌশলী হয়েও বিধি বর্হিভুর্তভাবে নির্বাহী প্রকৌশলীর সুযোগ ভোগ করেছেন।

...
Md. Saiful Islam(SJB:E525)
Mobile : 01558813552

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন
01868974512

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com , thana.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ